×
  • ঢাকা
  • রবিবার, ১৬ মে, ২০২১, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

মদনে প্রাইমারি শিক্ষকের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ


ইকবাল হাসান | নেত্রকোনা জেলা প্রতিনিধি প্রকাশিত: মে ৪, ২০২১, ০৪:১০ পিএম মদনে প্রাইমারি শিক্ষকের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

নেত্রকোনার মদন উপজেলায় কাইকুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সাইফুল ইসলাম বাবুল মাস্টারের বিরুদ্ধে ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, কাইকুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মেরামত বাবদ ২ লক্ষ টাকা এবং স্লিপ বাবদ ৫০ হাজার টাকা, স্কুলের উন্নয়নমূলক কাজের জন্য বরাদ্দ এসেছে। স্কুল কমিটি, গ্রামবাসী ও প্রধান শিক্ষককে নিয়ে আলোচনা হয় কিভাবে স্কুলের উন্নয়নমূলক কাজটি সুন্দরভাবে সমাধান করা যায়। আলোচনার প্রেক্ষিতে সিদ্ধান্ত আসে, মোঃ নুরুজ্জামান, মোঃ মাজু মাস্টার, মোঃ এমদাদুল হক, মোঃ আব্দুল কাদির মেম্বার, মোঃ আলম ও প্রধান শিক্ষককে নিয়ে ৬ সদস্য বিশিষ্ট অস্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়। এই ৬ জনে মিলে স্কুলের যাবতীয় মালামাল ক্রয় করার সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু বাবুল মাস্টার কাউকে না জানিয়ে নিজেই একা  স্কুলের সকল মালামাল ক্রয় করে, যা কমিটির কেউ জানে না, কত টাকা খরচ করা হয়েছে। টাকার হিসাব চাইতে গেলে অশালীন ব্যবহার করে কমিটির লোকজনের সাথে।

আরো পড়ুন: স্পিডবোট ও বাল্কহেডের সংঘর্ষের ঘটনায় নৌ-পুলিশের মামলা

মোঃ আব্দুল কাদির মেম্বার বলেন, প্রধান শিক্ষক কমিটির সদস্যদেরকে না নিয়েই একা কাজটি করেছেন। কাজের মান অত্যন্ত নিম্নমানের।

এ বিষয়ে কাইকুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি নুরুজ্জামান বলেন, আমি ও প্রধান শিক্ষকসহ ৬ জন বিশিষ্ট অস্থায়ী কমিটি গঠন করেছিলাম সঠিকভাবে কাজ করার জন্য। কিন্তু প্রধান শিক্ষক সবাইকে বাদ দিয়ে একাই কাজ সম্পন্ন করে, ফায়দা লোটার জন্য।

আরো পড়ুন: অনৈতিক কাজে ধরা, চাপে পড়ে বিধবাকে বিয়ে করলেন মেম্বার

সাইফুল ইসলাম বাবুল মাস্টার বলেন, আমার বিরুদ্ধে সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ আনা হয়েছে, আমি স্কুলের এক টাকাও আত্মসাত করিনি।

মদন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল হোসেন বলেন, বাবুল মাস্টারের বিরুদ্ধে অভিযোগ এখনো হাতে পায়নি। পাওয়ার পরে সত্যতা যাচাই করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ইউসুফ / একটিভ নিউজ