ঢাকা, রবিবার, ১০ মাঘ ১৪২৭, ২৪ জানুয়ারী, ২০২১

Facebook Twitter Youtube

Logo

আত্মার শান্তির জন্য মা’কে কুপিয়ে মারল ছেলে

উঠানে ধান শুকাচ্ছিলেন মা। হঠাৎই ডাব কাটার ধারালো দা নিয়ে তার দিকে তেড়ে যায় ছেলে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই মায়ের মাথায়, ঘাড়ে ও দুই হাতে ছয়টি কোপ দেয়।দেখে ছেলেটার নানি ছুটে এসে তাকে থামিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় মাকে উদ্ধার করে। এরপর চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেয়ার পথেই মারা যান ওই মা। গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার কাওরাইদ ইউনিয়নের

ডেস্ক: একটিভ নিউজ
প্রকাশিত: বুধবার, ০২ ডিসেম্বর, ২০২০, ১০:১৭
হত্যা_প্রতীকী
হত্যা_প্রতীকী

উঠানে ধান শুকাচ্ছিলেন মা। হঠাৎই ডাব কাটার ধারালো দা নিয়ে তার দিকে তেড়ে যায় ছেলে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই মায়ের মাথায়, ঘাড়ে ও দুই হাতে ছয়টি কোপ দেয়।দেখে ছেলেটার নানি ছুটে এসে তাকে থামিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় মাকে উদ্ধার করে। এরপর চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেয়ার পথেই মারা যান ওই মা।

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার কাওরাইদ ইউনিয়নের পশ্চিম সোনাব গ্রামে আজ বুধবার সকালে এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে। 

নিহত রেহেনা খাতুন (৪৫) ওই গ্রামের রশিদ আনোয়ারের স্ত্রী।

এদিকে হত্যায় অভিযুক্ত ছেলে (১৬) তাঁদের চতুর্থ সন্তান। সে পাশের বলদীঘাট জে এম সরকার উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র। 

ছেলেটির বাবার দাবি তাঁর ছেলে গত দুই বছর ধরে মানসিক ভারসাম্যহীন।

এদিকে হত্যাকাণ্ডের পর ওই ছেলেকে স্বজন ও প্রতিবেশীরা ধরে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে।

ঘটনার বিষয়ে শ্রীপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মনিরুজ্জামান খান জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ওই ছেলে তার মাকে হত্যা করেছে বলে স্বীকার করেছে। জিজ্ঞাসাবাদে বারবারই সে (ছেলে) বলছে 'মা আল্লাহর কাছে গেছে। মার আত্মার শান্তির লাইগ্যা মাইরা ফালছি'।

অন্যদিকে ছেলের নানি প্রত্যক্ষ্যদর্শী রমিজা খাতুন জানান, সকাল সোয়া ১০টার দিকে তাঁর মেয়ের চিৎকারে টের পান তিনি। ছুটে গিয়ে দেখেন মাকে দা দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপাচ্ছেন তাঁরই (মা) ছেলে। ওই সময় তিনি ছেলেটার হাত থেকে রক্তমাখা দা কেড়ে নেন। পরে রেহেনা খাতুনকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে মারা যান।

পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মনিরুজ্জামান খান আরো বলেন, আচরণ দেখে মনে হয়েছে ছেলেটা মানসিক ভারসাম্যহীন। কিন্তু ওই ছেলের চিকিৎসার কোনো কাগজপত্র এখনো হাতে পাইনি। তিনি জানান, নিহতের মাথার পেছনে, ঘাড়ে ও দুই হাতে ছয়টি কোপের জখম ছিল।

এর মধ্যে চারটি জখম ছিল খুবই গুরুতর। 

রেহেনা খাতুনের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বিকেলে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের স্বামী বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন বলেও জানান তিনি।



একটিভ নিউজ / এস কে
×
সারাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

উঠানে ধান শুকাচ্ছিলেন মা। হঠাৎই ডাব কাটার ধারালো দা নিয়ে তার দিকে তেড়ে যায় ছেলে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই মায়ের মাথায়, ঘাড়ে ও দুই হাতে ছয়টি কোপ দেয়।দেখে ছেলেটার নানি ছুটে এসে তাকে থামিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় মাকে উদ্ধার করে। এরপর চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেয়ার পথেই মারা যান ওই মা। গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার

Active News logo
    Active news app

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ আজিজুর রহমান
সহ-সম্পাদক: বি, এম বাবলুর রহমান
উপদেষ্টা: এ‍্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট
উপদেষ্টা: জাহাঙ্গীর আকন্দ
প‍্যারামাউন্ট হাইটস, পল্টন, ঢাকা-১০০০।
টেলিফোন: ০২-৪৮৯৫৭৯৬৭
মোবাইল: ০১৭১৬-৪৬৫৬১৬
ইমেইল: activenewsoffice@gmail.com