ঢাকা, রবিবার, ৪ মাঘ ১৪২৭, ১৭ জানুয়ারী, ২০২১

Facebook Twitter Youtube

Logo

রাজশাহীর দূর্গাপুরে পৈত্রিক সম্পত্তি দখলের অভিযোগ প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে 

রাজশাহীর দূর্গাপুর উপজেলার মৌজা পলাশবাড়ি, জেএলনং-৫৯, খতিয়ান নং-আর এস ৯ ও ১৪০, দাগ নং ২৮০৩ ও ২০৮৬, রকম ধানী ও মাঠিয়াল, পরিমান দুই দাগ মিলে মোট ১৩ বিঘা ১১শতক। এই  সম্পত্তির মুল মালিক মৃত আব্বাস আলী, তার স্ত্রী মোছাম্মৎ হামিদা ও তার ভাই আজিজুল হক। কিন্তু তারা উভয়ে মারা যাওয়ায় বর্তমানে তার ওয়ারিসগণ মালিক হয়েছেন। জমির হালসন নাগাদ

রাজশাহী ব্যুরো: লিয়াকত
প্রকাশিত: শনিবার, ২৬ ডিসেম্বর, ২০২০, ০৬:৩২
সম্পত্তি দখলের অভিযোগ প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে 
সম্পত্তি দখলের অভিযোগ প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে 

রাজশাহীর দূর্গাপুর উপজেলার মৌজা পলাশবাড়ি, জেএলনং-৫৯, খতিয়ান নং-আর এস ৯ ও ১৪০, দাগ নং ২৮০৩ ও ২০৮৬, রকম ধানী ও মাঠিয়াল, পরিমান দুই দাগ মিলে মোট ১৩ বিঘা ১১শতক। এই  সম্পত্তির মুল মালিক মৃত আব্বাস আলী, তার স্ত্রী মোছাম্মৎ হামিদা ও তার ভাই আজিজুল হক। কিন্তু তারা উভয়ে মারা যাওয়ায় বর্তমানে তার ওয়ারিসগণ মালিক হয়েছেন। জমির হালসন নাগাদ খাজনা দেয়া থাকলেও এই জমি দখলের পায়তারা করছে পলাশবাড়ি গ্রামের ভূমিদস্যু আব্দুর রশিদ ও হায়তা আলী গংরা। 

মালিক পক্ষ জমির কচুরীপানা পরিস্কার করতে গেলে বাধা দেন এবং মালিক পক্ষের বেশ কয়েকজনকে মারপিট করেন আব্দুর রশিদ গংরা। সেইসাথে মোবাইল ও নগদ অর্থ ছিনিয়ে নেন। এর প্রতিবাদে এবং ভূমিদস্যুদের শাস্তির জন্য মালিকগণের মধ্যে আব্বাসের ছেলে হাসান উদ্দৌলা সরাফী বাদি হয়ে দূর্গাপুর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

 

আরো পড়ন:নারী আনসার কর্মকর্তার গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা

এতে তিনি উল্লেখ করেন উক্ত তপশিলভূক্ত সম্পত্তি তারা ভোগ দখল করে আসছেন। এই সম্পত্তি নিচু হওয়ায় সেখানে পানি জমে থাকে। ফলে এই জমিতে অনেক দেশীয় মাছ আছে। এছাড়াও পুরো জমিটি কচুরীপানা দিয়ে ভরপুর হওয়ায় তারা সেগুলো  পরিস্কার করার জন্য লেবার লাগান। কিন্তু স্থানীয় পলাশ বাড়ি গ্রামের মৃত নছির শাহ এর ছেলে আব্দুর রশিদ, মৃত মজু মন্ডলের ছেলে হায়াত আলী, মৃত নছির শাহ এর আরেক ছেলে আব্দুল জলিল ও হায়াত আলীর ছেলে শাহিন ও তাদের লাঠিয়াল বাহিনী নিয়ে, দেশীয় অস্ত্র সাথে করে জমিতে হাজির হন এবং কচুরীপানা অপসারণ করতে বাধা দেন এবং পাচ লক্ষ টাকা চাদা দাবী করেন । 

এসময়ে জমিতে আব্বাসের ছেলে হাসান উদ্দৌলা সরাফী, এ.এফ.এম সাইদ, জুলফিকার আলী জিন্না ও শহিদুন্নবী আব্বাসী  উপস্থিত ছিলেন। তারা বাধা দিলে আব্দুর রশিদের নির্দেশে তার লাঠিয়াল বাহিনী অতর্কিত হামলা চালায় এবং টাকা না দিলে জানে মেরে ফেলা হবে বলে হুমকী দেন।

শুধু তাই নয় তারা এলাকার লোক বলে এই জমি জোর করে দখল করে ভোগ দখল করবেন বলে হুমকী দেন। জমির মালিকগণ তাদের বাধার মুখে প্রাণ বাচানোর জন্য ফিরে আসেন। এসময়ে রশিদ গংরা হাসান উদ্দৌলা সরাফীর নিকট থাকা অপপো স্মার্ট মোবাইল ফোন ও লেবার পেমেন্ট দেয়ার জন্য রাখা আশি হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় বলে জানান তিনি। জমির মালিকগণ এই ভূমিদস্যুদের কঠোর শাস্তির দাবী করেন। 

আরো পড়ন:টেম্পুতে লোক উঠানোকে কেন্দ্র করে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষে নিহত ২

মৃত আব্বাসের আরেক ছেলে টি.আই এ.এন.এম মাসুদ বলেন, তিনি পুলিশের চাকরী করেও তাদের নিজস্ব সম্পত্তি ব্যবহার করতে পারছেন না। জমিটি নিচু হওয়ায় তারা সেখানে পুকুর কেটে মাছ চাষ করার উদ্যোগ নিয়েছেন । এই ভূমি দস্যুদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন বলে জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, এই জমির ১৪২৭ সাল পর্যন্ত খাজনা প্রদান করা হয়েছে। 

আব্বাসের ছেলেরা এই জমি লিজ নিয়েছেন এবং হালসন নাগাদ খাজনা পরিশোধ করেছেন। এখন জমি তাদের। কেন তাদের জমিতে গেলে বাধা প্রদান করছেন জানতে চাইলে পলাশবাড়ি গ্রামের আব্দুর রশিদ বলেন, সরকারী সম্পত্তি কাউকে ব্যবহার করতে তিনি দেবেন না। এই জমির লিজ বাতিল করতে তিনি মামলা করবেন বলে জানান। সরাকারী সম্পত্তির লিজ বাতিলের জন্য সরকার বাদে তিনি কেন মামলা করবেন জানতে চাইলে রশিদ বলেন, সরকারতো আর সব কিছিু জানেন না। সরকারকে তিনি বিষয়টি অবহিত করবেন।

তিনি আরো বলেন, আব্বাস আলীর ছেলেদের নিকট থেকে কোন প্রকার টাকা চাদা দাবী এবং মোবাইল এবং নগদ অর্থ ছিনিয়ে নেননি। 

আরো পড়ন:ময়মনসিংহে আইডিয়াল একাডেমীর ২০ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপিত

এই জমি নিয়ে মামলা সম্পর্কে জানতে চাইলে দূর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ হাসমত আলী বলেন, এটা নিয়ে মামলা হয়েছে। দুইজন আসামী কোর্টে আত্মসমর্পন করলে কোর্ট তাদের জেল হাজতে পাঠান। পরে আসামীরা জামিন নিয়ে বের হয়ে গেছেন। এখন কোর্টে মামলা চলমান রয়েছে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।



একটিভ নিউজ / তুষার
×
সারাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

রাজশাহীর দূর্গাপুর উপজেলার মৌজা পলাশবাড়ি, জেএলনং-৫৯, খতিয়ান নং-আর এস ৯ ও ১৪০, দাগ নং ২৮০৩ ও ২০৮৬, রকম ধানী ও মাঠিয়াল, পরিমান দুই দাগ মিলে মোট ১৩ বিঘা ১১শতক। এই  সম্পত্তির মুল মালিক মৃত আব্বাস আলী, তার স্ত্রী মোছাম্মৎ হামিদা ও তার ভাই আজিজুল হক। কিন্তু তারা উভয়ে মারা যাওয়ায় বর্তমানে তার ওয়ারিসগণ মালিক

Active News logo
    Active news app

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ আজিজুর রহমান
সহ-সম্পাদক: বি, এম বাবলুর রহমান
উপদেষ্টা: এ‍্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট
উপদেষ্টা: জাহাঙ্গীর আকন্দ
প‍্যারামাউন্ট হাইটস, পল্টন, ঢাকা-১০০০।
টেলিফোন: ০২-৪৮৯৫৭৯৬৭
মোবাইল: ০১৭১৬-৪৬৫৬১৬
ইমেইল: activenewsoffice@gmail.com