• ঢাকা
  • শনিবার, ০৬ মার্চ, ২০২১, ২২ ফাল্গুন ১৪২৭
Active News 24

স্বামী বিদেশ থাকায় ভাইয়ের সাথে শারীরিক সম্পর্ক, দেখে ফেলল সন্তানরা 


| ডেস্ক: প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২১, ০৫:৪৮ পিএম স্বামী বিদেশ থাকায় ভাইয়ের সাথে শারীরিক সম্পর্ক, দেখে ফেলল সন্তানরা 
প্রতীকী

স্বামীর বিদেশ থাকার সুযোগ নিয়ে সাভারের ধামরাইয়ে কথিত ধর্মের ভাইয়ের সাথে শারীরিক সম্পর্কের সময় সন্তানদের কাছে ধরা পড়েছে এক নারী। এদিকে সন্তানরা সব জেনে গেছে বুঝতে পেরে ঘটনাটি গোপন রাখতে প্রত্যক্ষদর্শী তিন সন্তানকে বঁটি দিয়ে জবাই করার চেষ্টা করে ওই পাষণ্ড মা। 

এরপর সন্তানরা চিৎকার শুরু করলে আশপাশের প্রতিবেশীরা তাদেরকে রক্ষা করে হাসপাতালে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন।

গত শুক্রবার দিনগত রাতে ধামরাই উপজেলার সুয়াপুর ইউনিয়নের কুটিরচর গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে গেলো। ভুক্তভোগী ওই তিন সন্তান ও প্রতিবেশী লোকজন এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ঘটনার বিষয়ে ভুক্তভোগী তিন সন্তান ও প্রতিবেশীরা জানান, ২০২০ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি স্ত্রী সিমা আক্তার, দুই ছেলে আবির হোসেন (১২), আরী হোসেন মিতু (১০) এবং এক মেয়ে আমেনা আক্তারকে(১০) রেখে কাতারে যান কুটিরচর গ্রামের মো. আনোয়ার হোসেন।েএর বেশ কিছুদিন পরেই আনোয়ারের স্ত্রী সীমা আক্তার মানিকগঞ্জ জেলার সদর থানার বাররারচর গ্রামের মো. রাশেদুল ইসলাম নামের এক দুবাই ফেরত যুবকের সঙ্গে পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়েন।

আরো পড়ুন: পুলিশ সেজে ছিনতাই করতে গিয়ে ধরা খেল ছাত্রলীগ নেতা

এদিকে পরকীয়া প্রেমের বিষয়টি সবার প্রকাশ্যে আসলে সীমা আক্তার তার পরকীয়া প্রেমিককে সবার কাছে ধর্ম ভাই হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেন। এরপর থেকে প্রায়ই সীমা তার পরকীয়া প্রেমিককে বাড়িতে নিয়ে আসতে থাকেন। এরপর ঘটনার দিন শুক্রবার রাত দুইটার দিকে সীমা আক্তারকে যুবক রাশেদুলের সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলে তার তিন সন্তান।

সন্তানরা মায়ের এমন কীর্তিকলাপ দেখে ফোনে বিষয়টি তাদের বাবা আনোয়ার হোসেনকে জানায়। এরই প্রেক্ষিতে রেগে গিয়ে সীমা আক্তার তার তিন সন্তানকেই বঁটি দিয়ে জবাই করে হত্যার চেষ্টা করলে তাদের চিৎকারে দ্রুত আশপাশের লোকজন লাঠিসোঠা নিয়ে এগিয়ে এসে তাদেরকে রক্ষা করে। পরে স্থানীয়রা তাদের চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়।

আরো পড়ুন: ইসলাম ধর্ম ত্যাগ করে হিন্দু প্রেমিককে বিয়ে, ভালোবাসার করুণ পরিণতি

এদিকে ঘটনার পরদিনই সীমা আক্তারের স্বামী এবং ওই তিন সন্তানের বাবা দেশে চলে আসেন। এরপর ছেলে-মেয়ে ও প্রতিবেশী লোকজনের কাছ থেকে ঘটনাটি জানার পর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে স্ত্রী সীমাকে বেধড়ক মারধর করে আনোয়ার। পরে আহত সীমাকে ধামরাই সরকারি হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে।

অন্যদিকে ঘটনার বিষয়ে জানতে পেরে সীমার পরকীয়া প্রেমিক মো. রাশেদুল ইসলাম আনোয়ারের স্ত্রী সীমাকে ধামরাই হাসাপাতাল থেকে ভাগিয়ে নিয়ে মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন।

আরো পড়ুন: রংপুরে স্ত্রীর স্বাক্ষর জাল করে স্বামীকে তালাক দিলেন কাজি

এ ঘটনার পর ধামরাই থানায় আনোয়ার হোসেন একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

এদিকে ঘটনার বিষয়ে ধামরাই থানার তদন্তকারী কর্মকর্তা আব্দুস সালাম বলেন, বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। সরেজমিনে পরিদর্শন করেছি। বিষয়টি গভীরভাবে তদন্ত সাপেক্ষে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

মামলার তদন্তের স্বার্থে এ ব্যাপারে আপাতত কোনও তথ্য প্রদান করা যাবে না। তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানানো হবে বলেও জানান তিনি।

একটিভ নিউজ