×
  • ঢাকা
  • সোমবার, ১৭ মে, ২০২১, ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

‘আরিফ তোমার জন্য আমার কলঙ্ক’ লিখে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা


একটিভ নিউজ প্রকাশিত: এপ্রিল ১৫, ২০২১, ১১:০৮ পিএম ‘আরিফ তোমার জন্য আমার কলঙ্ক’ লিখে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা
সংগৃহীত

নোয়াখালী জেলার সুবর্ণচরে চিরকুটে ‘আরিফ তোমার জন্য আমার কলঙ্ক’ লিখে পহেলা বৈশাখে এক স্কুলছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। পহেলা বৈশাখ বুধবার (১৪ এপ্রিল) রাতে চিরকুটসহ নিহত নাহিদা আক্তারের (১৭) লাশ উপজেলার চরজব্বর থানার পুলিশ উদ্ধার করেছে।

চরজুবলি ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের চর জিয়াউদ্দিন গ্রামের আবুল কালামের মেয়ে নাহিদা আক্তার। সে স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

আরো পড়ুন: চকলেট ও মজা কিনে দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ৮ বছরের শিশুকে ধর্ষণ

তার চিরকুটে লেখা ছিল- ‘আমার মৃত্যুর জন্য আমার মা-বাবা দায়ী নয়। আমার কবর যেন বাড়ির সামনে দেয়। আরিফ তোমার জন্য আমার কলঙ্ক।’

পুলিশ লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করে চরজব্বর থানার ওসি মো. জিয়াউল বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদরে পাঠানো হয়েছে। পরবর্তীতে এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এর আগে বুধবার রাত ৯টার দিকে পরিবারের সদস্যদের অগোচরে বসত ঘরের আড়ার সাথে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে বলে পারিবারিক সূত্র দাবি করেছে।

 

সন্তানকে গরম চামচের ছ্যাঁকা দেয়ায় কারাগারে মা


সন্তানকে গরম চামচের ছ্যাঁকা দেয়ায় কারাগারে মা

প্রতিকী ছবি

যশোর জেলার শিশু সন্তানকে গরম চামচের ছ্যাঁকা দেয়ার অভিযোগে সোনিয়া খাতুন সনি (২১) নামে এক নারীকে আটক করেছে পুলিশ। এর  পরে আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

শহরের পালবাড়ি গাজীরঘাট রোডের বাসা থেকে বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) ভোরে তাকে আটক করা হয়। তিনি ওই এলাকার সাদেক মোল্লার বাড়ির ভাড়াটিয়া ও রিকশাচালক বিপুল হোসেনের স্ত্রী।

আরো পড়ুন: বাঘের মুখ থেকে ছেলেকে কেড়ে আনলেন বাবা

কোতোয়ালী থানার ওসি তাজুল ইসলাম সংবাদমাধ্যমকে জানান, প্রতিদিনের মতো গত বুধবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে সোনিয়ার ছেলে সামির হোসেন (৪) বাড়ির বাইরে খেলতে যায়। এ সময় সোনিয়া খাতুন সনি তাকে খেলতে যেতে নিষেধ করে। কিন্তু সামির মায়ের কথা শোনেনি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সোনিয়া তাকে ধরে ঘরে নিয়ে যায়। এরপর স্টিলের চামচ গরম করে তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছ্যাঁকা দেয়। সামির চিৎকার শুনে আশেপাশের লোকজন ছুটে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে। পরে তাকে যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আরো পড়ুন: যশোরে বোমা বিস্ফোরণে শিশু নিহত

ওসি তাজুল ইসলাম আরও বলেন, এ ঘটনায় সামির বাবা বিপুল হোসেন সন্তানকে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ এনে স্ত্রীর বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় একটি মামলা করেন। এর প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার সকালে সোনিয়া খাতুনকে তার বাসা থেকে আটক করা হয়। আজ দুপুরের পর তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সাইফুল বারী / একটিভ নিউজ