×
  • ঢাকা
  • বুধবার, ১৯ মে, ২০২১, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

মৃতদেহ শনাক্তে ডিএনএর সব তথ্যই ভুল দিল হাসপাতাল


একটিভ নিউজ প্রকাশিত: এপ্রিল ২৯, ২০২১, ১১:৪২ এএম মৃতদেহ শনাক্তে ডিএনএর সব তথ্যই ভুল দিল হাসপাতাল

মৃতদেহের ডিএনএ নমুনা সংরক্ষণে গাফিলতির অভিযোগ উঠেছে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে। ফলে ফরেনসিক ল্যাবরেটরি থেকে জেলায় একাধিক মামলায় অজ্ঞাতনামা মৃতদেহের পরিচয় শনাক্তের জন্য সংরক্ষিত ডিএনএর তথ্য ভুল এসেছে। 

পুলিশ বলছে যে, হাসপাতালের দায়িত্বরত ডাক্তারের গাফিলতিতেই এসব ভুল হচ্ছে। অভিযোগ খতিয়ে দেখার আশ্বাস হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের। 

সূত্রে জানা গেছে, ২০২০ সালের ২৫ জুন সিরাজগঞ্জের বেলকুচি থানার চররান্ধুনিবাড়ি এলাকার ১০ বছরের শিশু ইয়ামিন নিখোঁজ হয়। এ ঘটনায় পুলিশ ২ জন আসামিকে আটক করে। পরে তাদের তথ্যের ভিত্তিতে ফসলি জমি থেকে শিশুর অর্ধগলিত মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। পুলিশ শিশুটির সঠিক পরিচয় শনাক্তে ডিএনএ পরীক্ষার নমুনা সংরক্ষণের আবেদন করে সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে। সেই নমুনা সংরক্ষণ করে ঢাকায় সিআইডির ফরেনসিক ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হয়। 

এ বিষয়ে বেলকুচি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তাফার দাবি, ডিএনএর রিপোর্টে বাবা-মার সঙ্গে শিশুটির মিল পাওয়া যায়নি।

আরো পড়ুন: যৌতুক না পেয়ে গৃহবধূকে গলাকেটে হত্যাচেষ্টা

একইভাবে জেলার উল্লাপাড়া থানার ফুলজোড় নদী থেকে একটি পুরুষের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মৃতদেহের সুরতহাল প্রতিবেদনে দেহটি পুরুষ বলা হলেও ল্যাবে একাধিকবার পরীক্ষা করে এটি কন্যা নবজাতকের ডিএনএ প্রোফাইল পাওয়া যায়।

আরো জানা গেছে, ডোম নয় হাসপাতালের মর্গে দায়িত্বরত পরিচ্ছন্নতাকর্মী ডাক্তারের পরামর্শে ডিএনএর নমুনা সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করেন।

ডিএনএ নমুনা সংরক্ষণে কর্তব্যরত ডাক্তারের গাফিলতির বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. সাইফুল ইসলাম।

পরিচয় শনাক্তে ডিএনএ রিপোট খুবই গুরুত্বপূর্ণ তাই নমুনা সংরক্ষণে মর্গের ডাক্তারকে আরও দায়িত্বশীল হওয়ার পরামর্শ জেলা পুলিশ সুপার হাসিবুল আলমের।

জেলার সদর, উল্লাপাড়া, বেলকুচি ও সলঙ্গা থানায় পরপর ৪টি অজ্ঞাতনামা মৃতদেহের পরিচয় শনাক্তের জন্য সংরক্ষিত ডিএনএ তথ্যের গরমিল হয়েছে বলে জানায় পুলিশ।

সাইফুল বারী / একটিভ নিউজ