ঢাকা, শুক্রবার, ৯ মাঘ ১৪২৭, ২২ জানুয়ারী, ২০২১

Facebook Twitter Youtube

Logo

জুয়ার জন্য মা-বোনকে বিষ খাইয়ে হত্যা

এক প্রকৌশলবিদ্যার ছাত্রের কথা। বিভিন্ন ক্রিকেট ম্যাচের ওপর বাজি ধরতে গিয়ে একসময় তার নেশায় পরিণত হয় হয় এই জুয়া। বাজি ধরতে ধরতে মায়ের ব্যাংকে রাখা সব অর্থ তুলে এনেও শান্তি পাননি। নিজেদের সব সম্পত্তি বিক্রি করা শুরু করেন। শেষ পর্যন্ত সেই জুয়াড়ির হাতে খুন হয় তার মা এবং বোন! ভারতের হায়দরাবাদে এমন ভয়ংকর ঘটনা ঘটেছে। সেই

ডেস্ক: একটিভ নিউজ
প্রকাশিত: সোমবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২০, ০৯:৫৭
মা বোনকে হত্যা
হত্যাকারী

এক প্রকৌশলবিদ্যার ছাত্রের কথা। বিভিন্ন ক্রিকেট ম্যাচের ওপর বাজি ধরতে গিয়ে একসময় তার নেশায় পরিণত হয় হয় এই জুয়া। বাজি ধরতে ধরতে মায়ের ব্যাংকে রাখা সব অর্থ তুলে এনেও শান্তি পাননি। নিজেদের সব সম্পত্তি বিক্রি করা শুরু করেন। শেষ পর্যন্ত সেই জুয়াড়ির হাতে খুন হয় তার মা এবং বোন!

ভারতের হায়দরাবাদে এমন ভয়ংকর ঘটনা ঘটেছে। সেই জুয়াড়ি হলেন এমটেকের ছাত্র পাল্লি সৈনত রেড্ডি। 

এ ঘটনাটি  নিশ্চিত করেছে মেদচল অঞ্চলের থানার পুলিশ।

 

ঘটনার বিষয়ে মুম্বাই মিরর জানিয়েছে, দ্বিতীয় বর্ষে পড়ুয়া এই ছাত্র ক্রিকেট নিয়ে বাজির নেশায় পড়েছিলেন। তার বাবা প্রভাকর রেড্ডি তিন বছর আগেই মারা গেছেন। মা সুনিতা (৪৪) একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন। বোন অনুজা (২২) ফার্মাসিতে পড়াশোনা করছিলেন। স্বামীর মৃত্যুর পর জীবনবিমা থেকে প্রাপ্ত অর্থের সঙ্গে নিজেদের কিছু সম্পত্তি বিক্রির টাকা ব্যাংকে রেখেছিলেন সুনিতা। 

ছেলে পাল্লি সৈনত বাজির নেশায় মাকে না জানিয়েই পুরো ২০ লাখ রুপি তুলে নিয়ে আসেন এবং পুরোটাই হেরে যান। বাজির অঙ্ক শোধ করতে মায়ের ১৫ তোলা গয়নাও বিক্রি করে দেন।

সুনিতা ও অনুজা পরে এ ঘটনা জানতে পেরে পাল্লি সৈনতকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। সুনিতা ছেলেকে শাসন করেন এবং জুয়ার নেশা ছেড়ে দেওয়ার জন্য কঠোর নির্দেশ দেন। এরপরেই মা-বোনকে খুন করার সিদ্ধান্ত নেয় সৈনত।

হত্যার ঘটনা সম্পর্কে মেদচল পুলিশ জানায়, গত ২৩ নভেম্বর সৈনত কীটনাশক কিনে এনে তার মা ও বোনের রাতের খাবারে মিশিয়ে দেন। খণ্ডকালীন চাকরি করা সৈনত রাতের খাবার নিয়ে অফিসে চলে যান। বারবার সৈনতকে ফোন করছিলেন সুনিতা, কিন্তু আগে থেকে মোবাইল বন্ধ করে রেখেছিলেন সৈনত। সকাল ৯টায় ফোন চালু করে মায়ের মেসেজ দেখেন।

তারপর ঘরে ফিরে দেখেন মা-বোন বিষের যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে। তাদের এই যন্ত্রণার দৃশ্য বসে বসে দেখেন সৈনত।

তখনও হাসপাতালে নিলে সৈনতের মা-বোন হয়তোবা বেঁচে যেতেন। কিন্তু পাষণ্ড ছেলেটি মা-বোনের অজ্ঞান হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করেন। এরপর মৃত্যু নিশ্চিত জেনে তাদের হাসপাতালে নেওয়ার নাটক সাজান। এত দেরি করে হাসপাতালে নেওয়ায় চিকিৎসকেরা চেষ্টা করেও মা-মেয়েকে বাঁচাতে পারেননি। গত ২৭ নভেম্বর অনুজা মারা যান; পরদিন মারা যান সুনিতা।

 

এ ঘটনায় আত্মীয়রা সৈনতকে সন্দেহের বশে জেরা শুরু করলে সৈনত নিজের দোষ স্বীকার করেন। এরপর তাকে হত্যা এবং প্রমাণ লোপাটের দায়ে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।



একটিভ নিউজ / এস কে
আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এক প্রকৌশলবিদ্যার ছাত্রের কথা। বিভিন্ন ক্রিকেট ম্যাচের ওপর বাজি ধরতে গিয়ে একসময় তার নেশায় পরিণত হয় হয় এই জুয়া। বাজি ধরতে ধরতে মায়ের ব্যাংকে রাখা সব অর্থ তুলে এনেও শান্তি পাননি। নিজেদের সব সম্পত্তি বিক্রি করা শুরু করেন। শেষ পর্যন্ত সেই জুয়াড়ির হাতে খুন হয় তার মা এবং বোন! ভারতের হায়দরাবাদে এমন ভয়ংকর

Active News logo
    Active news app

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ আজিজুর রহমান
সহ-সম্পাদক: বি, এম বাবলুর রহমান
উপদেষ্টা: এ‍্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট
উপদেষ্টা: জাহাঙ্গীর আকন্দ
প‍্যারামাউন্ট হাইটস, পল্টন, ঢাকা-১০০০।
টেলিফোন: ০২-৪৮৯৫৭৯৬৭
মোবাইল: ০১৭১৬-৪৬৫৬১৬
ইমেইল: activenewsoffice@gmail.com