ঢাকা, মঙ্গলবার, ১২ মাঘ ১৪২৭, ২৬ জানুয়ারী, ২০২১

Facebook Twitter Youtube

Logo

যে অপরাধে বিয়ে বন্ধে বর-কনেকে তুলে নিয়ে গেল পুলিশ

আইন চালু হওয়ার এক সপ্তাহের মধ্যে ভিন্ন ধর্মে বিয়ে রুখতে একেবারে বিবাহ আসরে উপস্থিত হল লখনউ-এর পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের লখনউয়ের পারা এলাকায়। আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সেখানে হিন্দু পাত্রীর সঙ্গে মুসলিম পাত্রের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। বুধবার বিয়ের সব আয়োজনও সারা হয়েছিল। কিন্তু আচার

ডেস্ক একটিভ নিউজ
প্রকাশিত: শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০২০, ০৫:৫১
যে অপরাধে বিয়ে বন্ধে বর-কনেকে তুলে নিয়ে গেল পুলিশ

আইন চালু হওয়ার এক সপ্তাহের মধ্যে ভিন্ন ধর্মে বিয়ে রুখতে একেবারে বিবাহ আসরে উপস্থিত হল লখনউ-এর পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের লখনউয়ের পারা এলাকায়।

আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সেখানে হিন্দু পাত্রীর সঙ্গে মুসলিম পাত্রের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। বুধবার বিয়ের সব আয়োজনও সারা হয়েছিল। কিন্তু আচার অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার কিছুক্ষণ আগেই বিবাহ বাসরে উপস্থিত হয় পুলিশ। 

বিবাহের অনুষ্ঠানে পৌঁছে পুলিশ উত্তরপ্রদেশে পাশ হওয়া নতুন আইন সম্পর্কে সকলকে জানিয়ে বলে, দু’পক্ষকেই থানায় যেতে হবে। এরপর পাত্র এবং কন্যা পক্ষ থানায় উপস্থিত হলে বলা হয়, নতুন আইন অনুসারে লখনউ জেলা শাসকের থেকে অনুমতি নেওয়ার পরই বিয়ের অনুষ্ঠান হতে পারে।

লখনউয়ের পুলিশ কর্মকর্তা সুরেশ চন্দ্র রাওয়াত বলেন, ‘ডিসেম্বর মাসের ২ তারিখে আমরা খবর পাই, হিন্দু এক পাত্রীর সঙ্গে মুসলিম পাত্রের বিয়ের আয়োজন করা হচ্ছে। সেই খবরের পরিপ্রেক্ষিতে বিয়েবাড়িতে যাওয়া হয়। দু’পক্ষকে থানায় ডেকে নতুন আইনের নথি দেওয়া হয়। এ ব্যাপারে দু’পক্ষই লিখিত সম্মতি জানায় থানায়। তারপর আইন অনুসারে তারা স্থানীয় জেলাপ্রশাসকের কাছে আবেদন করছেন। তিনি অনুমতি দিলে তবেই এই বিয়ে হবে।’

পাত্র বা পাত্রীর বাড়ির লোক সংবাদমাধ্যমে মুখ খুলতে না চাইলেও সূত্রের খবর দুই পরিবারের অনুমতিতেই এই বিবাহ অনুষ্ঠিত হচ্ছিল।

ধর্মান্তরণের কোনও বিষয় এর সঙ্গে জড়িয়ে নেই। সমস্ত আইনি জটিলতা কাটিয়ে দুই পরিবারই চায় বিয়ের অনুষ্ঠান এগিয়ে নিয়ে যেতে।



একটিভ নিউজ / কে এস
×
আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আইন চালু হওয়ার এক সপ্তাহের মধ্যে ভিন্ন ধর্মে বিয়ে রুখতে একেবারে বিবাহ আসরে উপস্থিত হল লখনউ-এর পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের লখনউয়ের পারা এলাকায়। আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সেখানে হিন্দু পাত্রীর সঙ্গে মুসলিম পাত্রের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। বুধবার বিয়ের সব আয়োজনও সারা হয়েছিল।

Active News logo
    Active news app

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ আজিজুর রহমান
সহ-সম্পাদক: বি, এম বাবলুর রহমান
উপদেষ্টা: এ‍্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট
উপদেষ্টা: জাহাঙ্গীর আকন্দ
প‍্যারামাউন্ট হাইটস, পল্টন, ঢাকা-১০০০।
টেলিফোন: ০২-৪৮৯৫৭৯৬৭
মোবাইল: ০১৭১৬-৪৬৫৬১৬
ইমেইল: activenewsoffice@gmail.com