×
  • ঢাকা
  • শনিবার, ৩১ জুলাই, ২০২১, ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮
Active News 24

চাহিদা অনুযায়ী মেলামেশা করতে না দেয়ায় স্ত্রীকে হত্যা করেন হীরা


একটিভ নিউজ প্রকাশিত: জুন ১, ২০২১, ০২:৩৬ পিএম চাহিদা অনুযায়ী মেলামেশা করতে না দেয়ায় স্ত্রীকে হত্যা করেন হীরা
সংগৃহীত

নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুল্লায় তানজিদা আক্তার পপিকে গলা কেটে হত্যার দায় স্বীকার করেছে তার স্বামী হীরা চৌধুরী। চাহিদা অনুযায়ী শারীরিক মেলামেশা করতে না দেয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা করে সে।

গত বৃহস্পতিবার বিকালে নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আহমেদ হুমায়ন কবীরের আদালত হীরা চৌধুরীর জবানবন্দি গ্রহণ করেছেন। পরে তাকে কারাগারে প্রেরণ করেছেন।

মামলার তদন্তকারী অফিসার ফতুল্লা মডেল থানার এসআই জাকির হোসেন মাসুদ সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, হীরা চৌধুরীকে গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায়- চাহিদা অনুযায়ী শারীরিক মেলামেশা করতে না দেয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে স্ত্রীকে হত্যা করেছে। সে আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করবে বলে জানালে তাকে আদালতে হাজির করা হয়।

আরো পড়ুন: থানার মধ্যে গৃহবধূকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে আদালতে মামলা

এসআই জাকির হোসেন মাসুদ আরও জানান, হীরা চৌধুরীর এ জবানবন্দিসহ আরও বিষয়ে তদন্ত চলছে। তদন্ত করে দেখা হবে এছাড়াও আর কোনো বিষয় রয়েছে কিনা। আদালত জবানবন্দি শেষে হীরা চৌধুরীকে কারাগারে প্রেরণ করেছেন।

ফতুল্লার বক্তাবলী ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের মৃত আলী আশরাফের মেয়ে নিহত তানজিদা আক্তার পপি (২৫)। হীরা চৌধুরী পূর্ব লামাপাড়ার এলাকার ওমর চৌধুরী তুহিনের ছেলে। তাদের সংসারে তুষার (১০) ও ফুয়াদ (৭) নামে দুটি পুত্রসন্তান রয়েছে।

আরো পড়ুন: টঙ্গীতে র‍্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি রকিবুজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, বুধবার ভোরে নিজ বাড়িতেই হীরা চৌধুরী তার স্ত্রী পপিকে হত্যা করে। হত্যার পর ঘটনাস্থল থেকেই হীরাকে ছুরিসহ গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় বুধবার রাতে নিহত পপির ভাই শাকিল বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন।

নিহত পপির ভাই শাকিল জানান, ভোরে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে তুমুল ঝগড়া ও হাতাহাতি শুরু হলে তাদের বড় ছেলে তুষার তার দাদাকে ডাকতে পাশের ফ্ল্যাটে যায়। তারা ফিরে এসে পপির রক্তাক্ত লাশ পড়ে থাকতে দেখে। এ সময় পাশের রুমে ঘুমিয়ে ছিল ছোট ছেলে ফুয়াদ।

সাইফুল বারী / একটিভ নিউজ