×
  • ঢাকা
  • শনিবার, ০৮ মে, ২০২১, ২৪ বৈশাখ ১৪২৮

জান্নাতের জন্য ফাঁসিতে ঝুলবেন মামুনুল হক!


একটিভ নিউজ প্রকাশিত: মে ১, ২০২১, ০৪:০৬ পিএম জান্নাতের জন্য ফাঁসিতে ঝুলবেন মামুনুল হক!
সংগৃহীত

হেফাজতে ইসলামের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির যুগ্ম-মহাসচিব মামুনুল হকের বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দৈহিক সম্পর্ক স্থাপন এবং আটক রাখার অভিযোগে ধর্ষণ মামলা করে জান্নাত আরা ঝর্ণা বলেছেন, রাষ্ট্রের কাছে সুষ্ঠু বিচার চান তিনি।

গত শুক্রবার (৩ এপ্রিল) নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ থানায় সকালে এসে নিজে বাদী হয়ে মামলাটি করেন ঝর্ণা। পরে সাংবাদিকদের জান্নাত আরা ঝর্ণা বলেন, ‘উনি (মামুনুল হক) আমার সরলতার সুযোগে আমার সঙ্গে অন্যায় করছে। অনেক দিন যাবৎ এই প্রতারণা চালাইতেছে। আমি রাষ্ট্রের কাছে সুষ্ঠু বিচার চাই।’

বাংলাদেশে ধর্ষণের সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড করার দাবিতে গত বছরের সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে তুমুল আন্দোলনের মুখে যে আইন পাস হয়েছে, সেটি হেফাজত নেতা মামুনুল হকের জন্য তৈরি করেছে ঝুঁকি। আগের আইনে ধর্ষণের অপরাধের ধরন বিবেচনায় সর্বোচ্চ সাজা যাবজ্জীবন অথবা মৃত্যুদণ্ড থাকলেও, সংশোধিত আইনে আদালতে প্রমাণ সাপেক্ষে এখন যেকোনো ধর্ষণের ক্ষেত্রেই সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড যুক্ত হয়েছে। বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী, বিয়ের আশ্বাস দিয়ে যৌন সম্পর্কও ধর্ষণ।মামুনুল হকের বিরুদ্ধে জান্নাত আরা ঝর্ণা মামলা করেছেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯-এর ১ ধারায়।

আরো পড়ুন: ঈদের আগেই গণপরিবহন চালু!
 
এই ধারায় বলা আছে যে, ‘যদি কোনো পুরুষ বিবাহবন্ধন ব্যতীত ১৬ বছরের অধিক বয়সী কোনো নারীর সহিত তাহার সম্মতি ব্যতিরেকে বা ভীতি প্রদর্শন বা প্রতারণামূলকভাবে তাহার সম্মতি আদায় করিয়া অথবা ১৬ বছরের কম বয়সী কোনো নারীর সহিত সম্মতিসহ বা সম্মতি ব্যতিরেকে যৌন সঙ্গম করেন, তাহা হইলে তিনি উক্ত নারীকে ধর্ষণ করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে।’

মামলার এজাহারে ঝর্ণা লেখেন, ‘সে (মামুনুল) আমাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে আমার সাথে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে। গত দুই বছর যাবৎ আমাকে বিভিন্ন সময় ঢাকা ও ঢাকার পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন এলাকায় ঘোরাঘুরির নাম করে নিয়ে গিয়ে তার পরিচিত বিভিন্ন হোটেল ও রিসোর্টে রাত্রিযাপন ও বিবাহের আশ্বাস দিয়ে তার যৌন লালসা চরিতার্থ করে। একপর্যায়ে আমি বিবাহের কথা বললে সে আমাকে বিবাহ করব, করছি বলে নানা অজুহাতে কালক্ষেপণ করতে থাকে।’
 
৩ এপ্রিল হেফাজত নেতা বিয়ের প্রলোভন দেখিয়েই রয়্যাল রিসোর্টে নিয়ে গিয়েছিলেন বলে মামলায় অভিযোগ করেছেন ঝর্ণা।

মামলা করার পর ঝর্ণা সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমার সরলতার সুযোগ নিয়ে উনি (মামুনুল) আমার সঙ্গে অন্যায় করেছেন, প্রতারণা করেছেন। আমি রাষ্ট্রের কাছে বিচার চাই। আমার এইটুকুই বলার, আর কিছুই বলার নেই।’

আরো পড়ুন: আমার নামে ২০১টি ভুয়া আইডি: কাদের

ঝর্ণা বলেন, ‘মামুনুল হক সরলতার সুযোগ নিয়ে আমাকে ধর্ষণ করেছে। বিভিন্ন অজুহাতে আমাকে অনেক জায়গায় নিয়ে গেছে, সেখানে রাত্রি যাপন করেছে। বিয়ের ব্যাপারে কথা বলার অজুহাতে রয়্যাল রিসোর্টের ৫০১ নম্বর রুমে নিয়ে ধর্ষণ করেছে। সে আমার সঙ্গে অন্যায় করেছে, প্রতারণা করেছে। আমি রাষ্ট্রের কাছে তার বিচার চাই।’

ধর্ষণ করেন, তাহা হইলে তিনি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হইবেন।’

তবে ২০২০ সালের সংশোধিত আইনের ৯(১) ধারায় সশ্রম কারাদণ্ডের পাশাপাশি মৃত্যুদণ্ডের শাস্তিও যুক্ত হয়েছে। এখনকার আইনটির ৯(১) ধারায় বলা হয়েছে, ‘যদি কোনো পুরুষ কোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করেন, তাহা হইলে তিনি মৃত্যুদণ্ডে বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হইবেন।’

২০০০ সালের আইনটিতে কেবল ধর্ষণের পর মৃত্যু ও দলগত ধর্ষণের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ডের বিধান ছিল। তবে গত বছর সংশোধন করা আইনের ৯(১), ৯(২), ৯(৩), ৯ (৪) (ক) ধারার সবগুলোতেই মৃত্যুদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

আরো পড়ুন: মুনিয়ার মৃত্যু: পাওয়া গেল নতুন তথ্য

আপিল বিভাগের সাবেক বিচারক বিচারপতি নিজামুল হক সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘আইন সংশোধনের পর আদালতে অভিযোগ প্রমাণ হলে সে অনুযায়ীই আসামির সর্বোচ্চ সাজা হতে পারে।’

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী আইনুন নাহার সিদ্দিকা সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘যে ধারায় মামলা দায়ের হয়েছে, তাতে তো সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবনের বিধান রয়েছে।’

আইনজীবী আইনুন নাহার সিদ্দিকা বলেন, ‘এখন সমস্যা হলো ধর্ষণ মামলা প্রমাণ করা। প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের কথা বলা হয়েছে, প্রশ্ন হলো ২৫ থেকে ৩০ বছরের একজন নারীকে প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ কতটা যৌক্তিক। এ অবস্থায় অভিযোগটি প্রমাণ করা বড় চ্যালেঞ্জ হবে।’

আরো পড়ুন: যে শাস্তি হতে পারে বসুন্ধরার এমডির

এদিকে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) জায়েদুল আলম বলেন, ‘ধর্ষণের মামলায় মামুনুল হককে গ্রেপ্তার দেখিয়ে নারায়ণগঞ্জে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।’

এসপি  জায়েদুল আলম  আরও জানান, সোনারগাঁ থানায় শুক্রবার সকালে মামলা করার পর জান্নাত আরা ঝর্ণাকে তার ছেলে আনোয়ার হোসেনের হেফাজতে দেয়া হয়েছে। তিনি নিজ বাড়িতে ফিরে গেছেন। মামলার পরবর্তী কার্যক্রম আদালতে মাধ্যমে করা হবে। সেখানে ঝর্ণাকে হাজির করা হবে।

মামলা করার পর ঝর্ণাকে সোনারগাঁ থেকে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে শারীরিক পরীক্ষা করা হয়। হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক মো. আসাদুজ্জামান এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সাইফুল বারী / একটিভ নিউজ